পাহাড় ট্রেকিং ও সচেতনতা


প্রকাশিত:
১৮ এপ্রিল ২০২১ ২৩:৩৫

আপডেট:
১৭ মে ২০২১ ০৭:২৮

ফাইল ফটো

বাংলাদেশে গত এক দশকে বেড়েছে ভ্রমণ প্রেমী এবং তাদের জন্য পাহাড় ট্রেকিংয়ের সুযোগ। প্রকৃতির বুনো সৌন্দর্যে বুক ভরে নিঃশ্বাস নিতে বছর জুড়েই ভ্রমণপিপাসুদের দেখা মেলে ট্রেকিংয়ে। যদিও বেশ কিছু পাহাড়ি রাস্তায় ট্রেকিংয়ে পদে পদে রয়েছে ঝুঁকি। ফলে ভ্রমণের পাশাপাশি দরকার সচেতনতাও।

সুস্থ হোন
পাহাড়ে ওঠার জন্য ভ্রমণকারীর শারীরিক সুস্থতা অনেক জরুরি। কারণ শারীরিকভাবে সুস্থ না হলে যেকোনো দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। আর একটি দুর্ঘটনা সারা জীবনের কান্না। তাই সুস্থ না হলে পাহাড় ট্রেকিংয়ে যাওয়া উচিত নয়। বিশেষ করে সমতল অঞ্চলের মানুষরা পাহাড়ি রাস্তাকেও সমতল অঞ্চলের মতো মনে করেন। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে পাহাড়ে না যাওয়া পর্যন্ত তাদের হুঁশ ফেরে না যে সেসব পথে চলাফেরা করা অনেক কঠিন। তাই পাহাড় ট্রেকিংয়ের জন্য সুস্থতা নিশ্চিত করা আবশ্যকীয়।

অভিজ্ঞতাসম্পন্ন কাউকে সঙ্গে নিন
পাহাড় ট্রেকিংয়ে একা না যাওয়াই উত্তম। একসঙ্গে কয়েকজন মিলে পাহাড় ট্রেকিং করলে একে অন্যের খেয়াল রাখার সুযোগ থাকে। আনন্দ ভাগাভাগি করা যায়। মনে রাখবেন, পাহাড় ট্রেকিংয়ে যাওয়ার সময় এমন মানুষদের বেছে নেওয়া উচিত যাদের আগে থেকেই ট্রেকিংয়ের অভিজ্ঞতা রয়েছে।

চোখ-কান খুলে হাঁটুন
পাহাড়ি রাস্তা কখনো চওড়া, কখনো সরু, কখনো ভেজা আবার কখনো শুকনো ধুলোময় হয়। তাই পাহাড় ট্রেকিংয়ের ক্ষেত্রে অবশ্যই চোখ-কান খোলা রাখুন। সতর্কতা অবলম্বন করুন। বিশেষ করে সরু পথে হাঁটার সময় সতর্ক অবস্থায় হাঁটুন। ভেজা মাটিতে হাঁটার সময় খেয়াল রাখুন যেন পিছলে পড়ে না যান।

হাইটফোবিয়া থাকলে পাহাড়ে যাবেন না
হাইটফোবিয়া বা উচ্চতার ভয় থাকলে পাহাড় ট্রেকিং না করাই শ্রেয়। নিজের মধ্যে হাইটফোবিয়া রয়েছে কি না সেটি নির্ণয় করার সহজ একটি উপায় হলও বাড়ির ছাদ বা কোনও উঁচু স্থানে দাঁড়ানো। যদি উঁচু জায়গা থেকে ভয় কাজ করে তাহলে আপনার মধ্যে হাইটফোবিয়া রয়েছে। আর হাইটফোবিয়া আক্রান্ত মানুষের পাহাড় এড়িয়ে চলা ভালো। কারণ এই অবস্থায় পাহাড়ে চলাফেরা করলে গুরুতর অসুস্থ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া অ্যাজমা বা শ্বাসকষ্ট থাকলেও পাহাড় এড়িয়ে চলা উচিত।



বিষয়:


আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top