হার দিয়ে বাংলাদেশের বিশ্বকাপ শুরু


প্রকাশিত:
১৮ অক্টোবর ২০২১ ০০:৫৭

আপডেট:
২৯ নভেম্বর ২০২১ ১২:১৭

বাংলাদেশ লজ্জার হার দিয়ে শুরু করলো টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সপ্তম আসর। বাছাই পর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে স্কটল্যান্ডের কাছে ৬ রানে হেরেছে টাইগাররা। স্কটল্যান্ড প্রথমে ব্যাট করে ২০ ওভারে নয় উইকেটে ১৪০ রান সংগ্রহ করে। ব্যাটে জবাব দিতে নেমে ২০ ওভারে সাত উইকেটে ১৩৪ রানের বেশি করতে পারেনি বাংলাদেশ।

ওমানের আল আমেরাতে ক্রিকেট গ্রাউন্ডে রোববার (১৭ অক্টোর) টস জিতে বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ প্রথমে ফিল্ডিং বেছে নেন। পেসার তাসকিন আহমেদ প্রথম ওভারে বল হাতে ৪ রান দেন। কাটার মাস্টার মুস্তাফিজুর রহমান পরের ওভারে লেগ-বাই থেকে ১ রান ছাড়া মেডেন ওভার পান।

প্রথম দুই ওভারে রান না আসায় চাপে পড়ে স্কটল্যান্ড। তৃতীয় ওভারে সেই চাপ আরও বাড়ান পেস অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন। দুর্দান্ত এক ইয়র্কারে রানের খাতা খোলার আগেই কাইল কোয়েৎজারকে বোল্ড করেন সাইফুদ্দিন।

এরপরই চাপের মুখ থেকে দলকে রক্ষা করতে মারমুখী হয়ে উঠেন ওপেনার জর্জ মুনসে। পাওয়ার প্লেতে দুটি ছক্কা ও একটি চার মারেন এই ব্যাটার। তার দেখাদেখি ১টি চার মারেন তিন নম্বরে নামা উইকেটরক্ষক ম্যাথু ক্রস। এতে ৭ ওভার শেষে এক উইকেটে ৪৪ রান তুলে ম্যাচে ফিরে স্কটল্যান্ড। এরপরই জমে যাওয়া মুনসে-ক্রস জুটি ভাঙতে মরিয়া ছিল বাংলাদেশ। অফ-স্পিনার মাহেদি হাসান বাংলাদেশের সেই আশা পূরণ করেন। নিজের প্রথম ও ইনিংসের অষ্টম ওভারে দুই উইকেট তুলে নেন মাহেদি। দলীয় ৪৫ ও ৪৬ রানে মুনসে-ক্রসকেই বিদায় দেন মাহেদি। ১৭ বলে একটি চারে ১১ রান করেন ক্রস। দুটি করে চার-ছক্কায় ২৩ বলে ২৯ রান করেন মুনসে।

দুই সেট ব্যাটসম্যানকে শিকার করে আত্মবিশ্বাসী হয়ে ওঠে বাংলাদেশ। এতে স্কটল্যান্ডের মিডল-অর্ডারে ছোট ধস নামান মাহেদি ও সাকিব আল হাসান। সাকিব দুটি ও মাহেদি একটি উইকেট নেন। এক পর্যায়ে ৫৩ রানেই ৬ উইকেট হারায় স্কটল্যান্ড।

এ অবস্থায় দলের হাল ধরেন ক্রিস গ্রেভস ও মার্ক ওয়াট। মারমুখী মেজাজে ব্যাট করে স্কটল্যান্ডকে লড়াই করার পুঁজি এনে দেন গ্রেভস। ২৮ বলে ৪টি চার ও ২টি ছক্কায় ৪৫ রান করেন গ্রেভস। আর ১৭ বলে ২২ রান করেন ওয়াট। শেষ পর্যন্ত ২০ ওভারে ৯ উইকেটে ১৪০ রান করে স্কটিশরা।

বাংলাদেশের মাহেদি ৩, মুস্তাফিজ-সাকিব ২টি করে এবং তাসকিন-সাইফুদ্দিন ১টি করে উইকেট নেন। ২টি উইকেট নিয়ে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট ইতিহাসে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারী এখন সাকিব। এতে পেছনে পড়ে গেলেন শ্রীলংকার লাসিথ মালিঙ্গা।

জয়ের জন্য ১৪১ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে শুরুটা ভালো করতে পারেনি বাংলাদেশ। ১৮ রানে দুই ওপেনার প্যাভিলিয়নে ফিরেন। লিটন দাস ও সৌম্য সরকার, দুজনই ৫ রান করে করেন।

২১ বলে ২ উইকেট হারানোর পর দলের হাল ধরেন সাকিব ও মুশফিকুর রহিম। সাবধানতার সঙ্গে স্কটল্যান্ডের বোলারদের মোকাবেলা করতে থাকেন তারা। উইকেটে টিকে থাকাই মূল লক্ষ্য ছিল সাকিব-মুশফিক জুটির । চতুর্থ ওভারে জুটি বাঁধার পর অষ্টম ওভার পর্যন্ত কোন বাউন্ডারি বা ওভার বাউন্ডারি আদায় করতে পারেননি সাকিব-মুশফিক। নবম ওভারে পরপর দুটি ছক্কা মারেন মুশফিক।

তবে ১২ ও ১৪তম ওভারে বড় ধাক্কা খায় বাংলাদেশ। প্রথমে ২৮ বলে ২০ রান করা সাকিব এবং পরে ৩৬ বলে ৩৮ রান কর মুশফিক আউট হন। সাকিবের ইনিংসে ১টি চার এবং মুশফিকের ইনিংসে ১টি চার ও ২টি ছক্কা ছিল।

সাকিব-মুশফিকের বিদায়ে ৭৪ রানে চতুর্থ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। এমন অবস্থায় জয়ের জন্য শেষ ৩০ বলে ৫৪ রান দরকার পড়ে বাংলাদেশের। এসময় অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহর সঙ্গে উইকেটে ছিলেন আফিফ হোসেন। ১৭তম ওভারে দুটি চারসহ ১২ রান মাহমুদুল্লাহ-আফিফ।

১৮তম ওভারে আউট হন আফিফ। ২টি চারে ১২ বলে ১৮ রান করেন। আফিফ ফিরলেও, মাহমুদুল্লাহর ক্যাপ্টেন্স নকের অপেক্ষায় ছিল বাংলাদেশ। সঙ্গে উইকেটরক্ষক নুরুল হাসানের শেষ দিকের ক্যামিও। যা আনঅফিসিয়াল ম্যাচে ওমান ‘এ’ দলের বিপক্ষে করেছিলেন নুরুল।

কিন্তু ১৯তম বাংলাদেশের স্বপ্ন চুরমার করে দেন স্কটল্যান্ডের ডান-হাতি পেসার ব্র্যাড হুইল। দ্বিতীয় বলে নুরুলকে ও পঞ্চম বলে মাহমুুদুল্লাহকে আউট করেন হুইল। ২২ বলে একটি করে চার-ছক্কায় মাহমুদুল্লাহ ২৩ ও নুরুল ২ রান করেন। এতে শেষ ওভারে জিততে ২৪ রান দরকার পড়ে বাংলাদেশের।

শেষ ওভারের দ্বিতীয় বলে সাইফুদ্দিনের বাউন্ডারি, এরপর মাহেদির ব্যাট থেকে চতুর্থ বলে ওভার বাউন্ডারি আসে। তাতেও স্কটল্যান্ডের ছুঁড়ে দেয়া টার্গেটকে স্পর্শ করতে পারেনি বাংলাদেশ। শেষ পর্যন্ত ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৩৪ রান করে হার মানে টাইগাররা।



বিষয়:


আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top